বর্তমান সময়ঃ- 5 June, 2020

স্মার্টফোন কুইক চার্জ-দ্রুততম উপায়ে মোবাইল ফোন চার্জ দিন

 

রেস্টুরেন্টে বসে আছে। ফোন থেকে একটা ক্যাব বুক্ল করবেন। ফোনে র‍্যেছে মাত্র ২ শতাংশ চার্জ। ক্যাব আবুক করার পরে আপনার কাছে আসার সময় পর্যন্ত অল্প সময় ফোনটা চার্জ করে নিতে চাইলেও ১০ মিনিট চার্জে ব্যাটারির কাঁটা উঠলো না। আমাদের সবার জীবনেই এই ঘটনা কম বেশি ঘটেছে। স্মার্টফোনে কুইক চার্জ বা ফাস্ট চার্জ প্রযুক্তি থাকলেও সব সময় জলদি চার্জ হয়না সাধের মুঠোফোন। এক নজরে দেখে নিন কীভাবে চটজলদি চার্জ করবেন আপনার স্মার্টফোন?

Read More Artical

আসসালামু আলাইকুম সবাইকে সালাম জানিয়ে আজকে আবারও আপনাদের কাছে একটি ট্রিক্স নিয়ে আসলাম এবংং সেটি হয়তো টাইটেল পড়েই বুঝে গিয়েছেন বেপারটা কী?

স্মার্টফোনে কুইক চার্জ

MIUI 11 ইন্টার্ফেস

স্মার্টফোনে কুইক চার্জ কী কী জানা জরুরি?

ব্যাটারির ফান্ডা

যে ফোনে যত বড় ব্যাটারি থাকবে সেই ফোন চার্জ হতে তত বেশি সময় লাগবে। তবে ফোনে যে যন্ত্রাংশ সবথেকে বেশি ব্যাটারি নষ্ট করে তা হল ডিসপ্লে। তাই ফোন চার্জ করার সময় ডিসপ্লে বন্ধ করে রাখলে তুলনামুলক জলদি স্মার্টফোনের ব্যাটারি চার্জ করে নেওয়া যাবে।

চার্জারের ফান্ডা

চার্জারে কারেন্ট আউটপুটের উপরেও চার্জের গতি নির্ভর করে। পুরনো আইফোন ও অ্যানড্রয়েড ফোনের চার্জারে ১ অ্যাম্পিয়ার কারেন্ট আউটপুট পাওয়া যেত। তবে এখন প্রায় সব চার্জারেই ২ অ্যাম্পিয়ার বা তার বেশি কারেন্ট আউটপুট থাকে। এছাড়াও কোয়ারকমের কুইচ চার্জ, ওয়ানপ্লাসের র‍্যাপ চার্জ আর ড্যাশ চার্জ, ওপ্পোর ভুক চার্জারে খুব জলদি স্মার্টফোন চার্জ হয়। তবে এর জন্য স্মার্টফোনে সেই নির্দিষ্ট ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি থাকা বাধ্যতামুলক।

কীভাবে জলদি চার্জ করবেন নিজের স্মার্টফোন?

১। ওয়াল চার্জার – যে কোন ওয়াল চার্জারে নিজের স্মার্টফোনের কেবেল যোগ করে জলদি চার্জ করা যাবে। ওয়াল চার্জারের কারেন্ট আউটপুট বেশি হলে দ্রুতগতিতে চার্জ হবে স্মার্টফোন।

২। ফাস্ট ওয়্যারলেস চার্জিং প্যাড – ফোনে ফাস্ট ওয়্যারলেস চার্জ সাপোর্ট থাকলে একটি ফাস্ট ওয়্যারলেস চার্জিং প্যাড কিলে ফেলতে পারেন। স্যামসাং গ্যালাক্স্য এস ১০, স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ১০ এর মতো ফোনগুলিতে এই প্রযুক্তি কাজ করে।

৩। বেশি আউটপুটের কার চার্জার – বেশিরভাগ কার চার্জারে ১ অ্যাম্পিয়ার আউটপুট পাওয়া যায়। সেই চার্জারে জলদি চার্জ করা যাবে না। কার চার্জার কেনার সময় কুইক চার্জ সাপোর্ট দেখে নিন।

৪। কুইক চার্জ পাওয়ারব্যাঙ্ক – আজকাল বেশিরভাগ পাওয়ারব্যাঙ্কে কুইক চার্জ সাপোর্ট থাকে। এই ধরনের পাওয়ারব্যাঙ্ক ব্যবহার করে জনদি স্মার্টফোন চার্জ করে নিতে পারবেন।

৫। ইউএসবি ৩.০ ব্যবহার করুন – ইউএসবি ৩.০ পোর্ট থেকে ১.৫ অ্যাম্পিয়ার কারেন্ট পাওয়া যায়। তাই যে কোন জায়গায় ইউএসবি ৩.০ থাকলে সেই পোর্ট ব্যবহার করে চার্জ করুন। এতে জলদি চার্জ হবে আপনার স্মার্টফোন।

৬। আইফোনে আইপ্যাডের চার্জার ব্যবহার করুন – আইফোন ৬ বা তার বেশি ভার্সানের আইফোন ব্যবহার করলে আইপ্যাডের চার্জার ব্যবহার করতে পারেন। এতে জলদি আপনার ফোন চার্জ হবে।

৭। ফোন বন্ধ রাখুন – ঝট করে অনেকটা চার্জ করে নিতে চাইলে চার্জিং এর সময় ফোন বন্ধ রাখুন। এতে জলদি চার্জ হবে আপনার ফোন।

৮। স্ক্রিন বন্ধ রাকুন – ফোন বন্ধ করে রাখা সম্ভব না হলে চার্জিং এর সময় অন্তত ফোনের ডিসপ্লে বন্ধ রাখুন।

৯। ব্যাটারি সেভার অন করুন – ফোন অন করে চার্জ করলে ব্যাটারি সেভার মোড অন করে চার্জ করুন। এতে জলদি চার্জ হবে আপনার ফোন।

Banglapen Hitz

Share

Leave a Reply